পুলিশ সুপারের গাড়িচালকের দাদাগিরি, মারধর আইনজীবীকে

স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: ক্ষমতার দম্ভ? কী বলবেন একে? পুলিশ সুপার অর্ণব ঘোষের গাড়ির চালকের হাতে প্রহৃত মালদহ জেলা আদালতের এক আইনজীবি। পুলিশ সুপারকে দফতরে নামিয়ে গাড়ি পার্কিং করার সময় গাড়ির চালকের সাথে এক আইনজীবির বচসা হয়।

এরপর গাড়ির চালক আইনজীবিকে রীতিমত মারধর করেন বলে অভিযোগ। এরপরই মালদহ আদালতের আইনজীবিরা পুলিশ সুপারের গাড়ি চালকের দাদাগিরির বিরুদ্ধে সোচ্চার হয় ওঠেন। শুরু হয় বিক্ষোভ আন্দোলন। ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে হাজির ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। উত্তপ্ত হয়ে ওঠে মালদহ আদালত চত্বর।

আরও পড়ুন : হলে পরীক্ষা দিচ্ছে কনে, বিয়েবাড়িতে অপেক্ষায় বরযাত্রী

– Advertisement –

জানা গিয়েছে, সোমবার দুপুর বেলা পুলিশ সুপারের গাড়ি চালক পুলিশ সুপারকে নামিয়ে গাড়ি পার্ক করছিলেন। সেই সময় পেছন পার্থসারথি রায় নামে মালদহ আদালতের মুহুরী দাঁড়িয়ে ছিলেন। গাড়ির চালককে দেখে গাড়ি ঘোরানোর কথা বলতে মারমুখী হয়ে ওঠে ওই চালক। সেখানে উপস্থিত এক আইনজীবী সুদীপ্ত গাঙ্গুলী ঘটনাটি দেখতে পেয়ে বলতে গেলে তাকে মারধর করা হয় ও হাত মুচকে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। ঘটনার খবর পেয়ে অন্যান্য আইনজীবীরা ছুটে আসে। এরপরে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে৷

আহত আইনজীবী সুদীপ্ত গাঙ্গুলি বলেন, আদালত চত্বরে গোলমালের ঘটনা চলছিল। সেই সময় ঘটনা দেখতে পেয়ে আমি কাছে গেলে আমাকে ধাক্কাধাক্কি করে পুলিশ সুপারের গাড়ি চালক। এরপরে আমাকে ধাক্কা দিয়ে হাত মচকে দেওয়া হয়। এতে আমার বাম হাতে গুরুতর আঘাত লাগে। ঘটনায় ইংলিশ বাজার থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে গালিগালাজ করা হয়। এরপর বাধ্য হয় অভিযোগ নিতে। পুলিশের উর্দিতে এই ধরনের হেনস্থা ভাবাই যায় না। আমরা চাই এর সঠিক তদন্ত হোক।

মালদহ বার এসোসিয়েশনের সেক্রেটারী দেব কিশোর মজুমদার বলেন,আমরা সব সমস্ত অভিযোগ জেলা জজ কে জানিয়েছি তিনি আমাদেরকে ২৪ ঘন্টা সময় চেয়েছে এর মধ্যে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ পুলিশ সুপার অর্ণব ঘোষ বলেন,অভিযোগ নেওয়া হয়েছে। চালকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত করা হবে।

জলপাইগুড়ির নতুন সার্কিট বেঞ্চে শুরু মামলার নথিভুক্তিকরণ

স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি : সার্কিট বেঞ্চে প্রথম দিনের কাজ হল সূচি মেনেই। এদিন থেকেই শুরু হয়েছে মামলা নথিভুক্তকরনের কাজ। এদিন নির্ধারিত সময়েই আদালতে আসেন প্রধান বিচারপতি সহ অন্যান্য বিচারপতিরা। এরপরে আইনজীবীদের সাথে কথা বলেন প্রধান বিচারপতি বিশ্বনাথ সমাদ্দার।

হাইকোর্টের কাজকর্ম তাদের বিস্তারিতভাবে বলেন প্রধান বিচারপতি। এদিন সার্কিট বেঞ্চে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্ত। তিনি জলপাইগুড়িতে সার্কিট বেঞ্চ স্থাপনের জন্য প্রধান বিচারপতি সহ অন্যান্য বিচারপতিদের ধন্যবাদ জানান।

– Advertisement –

এই অনুষ্ঠান শেষে প্রধান বিচারপতি বিভিন্ন বিভাগ ঘুরে দেখেন। এদিন মোট ২২টি মামলা ফাইলিং হয়েছে বলে জানিয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের বিশেষ সরকারি আইনজীবী সৈকত চট্টোপাধ্যায়। তিনি আরও জানান, আগামী কয়েকদিন এই ফাইলিংয়ের কাজ চলবে। এরপর থেকেই শুরু হয়ে যাবে সওয়াল জবাবের কাজ।

এদিকে, সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধনে খুশির হাওয়া জলপাইগুড়িতে। এদিন আবিরে, রঙে বিজয় উৎসব পালন করল জলপাইগুড়ি জেলা যুব তৃণমূল কংগ্রেস। এদিন জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেস দফতরের সামনে আবির নিয়ে হোলিতে মেতে ওঠেন যুব তৃণমূল কর্মীরা৷

সাধারণ নাগরিকদেরও রঙের উৎসবে সামিল করেন তারা। এবিষয়ে জেলা যুব তৃণমূল সভাপতি সৈকত চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, দীর্ঘ দশকের আন্দোলনের সাফল্যেই এই বিজয় উৎসব।

পদাতিক এক্সপ্রেসের স্টপেজ পেল জলপাইগুড়ি

স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: স্থানীয়দের দীর্ঘদিনের দাবি মেনে অবশেষে জলপাইগুড়ি রোড স্টেশনে পদাতিক এক্সপ্রেস ট্রেনের স্টপেজ চালু করল রেল দফতর। রবিবার সকালে আলিপুরদুয়ারগামী পদাতিক এক্সপ্রেস ট্রেনের দু’ মিনিটের জন্য জলপাইগুড়ি রোড স্টেশনে দাঁড়াতেই বিজেপির নেতা-কর্মীরা পুষ্পস্তবক দিয়ে সংবর্ধনা জানান রেলের চালক ও কর্মীদের।

দীর্ঘদিন ধরে জলপাইগুড়ি রোড স্টেশনে এই ট্রেনের স্টপেজ দেওয়ার জন্য দাবি জানিয়ে আসছে বিজেপি সহ অন্যান্য রাজনৈতিক দল। মাঝে অস্থায়ী ভাবে কিছুদিন জলপাইগুড়ি রোড স্টেশনে পদাতিক এক্সপ্রেস ট্রেনের স্টপেজ চালু করা হলেও পরে লাভের মুখ দেখতে না পারার অজুহাতে রেল দফতর এই ট্রেনের স্টপেজ তুলে নেয়। এরপর জলপাইগুড়ির বাসিন্দাদের সঙ্গে নিয়ে ফের পদাতিক এক্সপ্রেস ট্রেনের স্টপেজ চালু করার দাবিতে আন্দোলন শুরু হয়৷

পড়ুন: ভোট ঘোষণা হতেই সরল মমতার ছবি

– Advertisement –

এদিন বিজেপির জলপাইগুড়ি জেলা সম্পাদক বাপি গোস্বামী বলেন, আমরা খুব খুশি। শুধুমাত্র পদাতিক এক্সপ্রেস ট্রেনের স্টপেজই নয়, মানুষ লোকসভা নির্বাচনে আমাদের আশীর্বাদ করলে আগামী দিনে উন্নয়ন কাকে বলে আমরা তা করে দেখাবো।

পড়ুন: ডুমুরজলার খালে ডুবে মৃত্যু কিশোরের

এদিন জলপাইগুড়ি পুরসভার তৃণমূল কাউন্সিলর বিশ্বজিত সরকারও রোড স্টেশনে এসে এই ট্রেনের স্টপেজ চালু হওয়ায় জন্য রেল দফতরকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। শহরের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কর্মী শান্তি মুখোটি নিজস্ব টাকায় মিষ্টি কিনে রেলযাত্রী ও রেল কর্মীদের মিষ্টি মুখ করান।এদিন স্টেশন জুড়ে ছিল উৎসবের মেজাজ।

মধুচক্রের প্রতিবাদ করায় দুষ্কৃতিদের মারে নিহত বৃদ্ধ

মালদহ: মধুচক্র ও মদের আসরের বিরোধীতা করে প্রতিবেশীর মারে নিহত বৃদ্ধ৷ ঘটনা মালদহ থানার সাপুড়ের মালপাড়া এলাকার। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

নিহতের নাম দুখু হালদার (৭০)। বেশ কয়েকদিন ধরে সন্ধ্যায় মধুচক্র ও মদের আসর বসছিল মালপাড়ায়৷ শনিবার সন্ধ্যায় তারই প্রতিবাদ করেছিল স্থানীয় বাসিন্দা বৃদ্ধ দুখু হালদার৷ এরপরই মধু চক্রের দুই কারবারি শ্যাম হালদার ও মন্টু হালদার ওই বৃদ্ধকে বাড়িতে ঢুকে বেধরক মারধর করে বলে অভিযোগ৷ তারপর ওই বৃদ্ধকে বাড়ির বাইরে বের করে নিয়ে যায় তারা৷

আরও পড়ুন: বাড়ি দখল করে মালিকের শোওয়ার ঘরে CCTV লাগাল প্রমোটার

– Advertisement –

বৃদ্ধকে রাস্তায় ফেলে ইঁট এবং লোহার শাবল দিয়ে মাথায় আঘাত করা হয়৷ রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে পড়ে চিৎকার করতে থাকেন তিনি। স্থানীয়রা তাঁর চিৎকার শুনতে পেয়ে ঘটনাস্থলে যায়৷ প্রতিবেশীদের দেকে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়৷ রক্তাত্ব অবস্থায় বৃদ্ধকে উদ্ধার করে মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যান প্রতিবেশীরা৷

আরও পড়ুন: বিপুল জাল দু’হাজারের নোট সহ ধৃত দুই পাচারকারী

হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, বৃদ্ধের শরীরে একাধিক জায়গায় রক্তক্ষরণ হয়েছে। মাথায় গভীর ক্ষত রয়েছে। তাঁর শারীরিক অবস্থা সঙ্কটজনক হওয়ায় রাতেই তাঁকে কলকাতায় স্থানান্তরিত করার কথা বলা হয়৷ কলকাতায় নিয়ে যাওয়ার পথে সুজাপুরের কাছে মৃত্যু হয় আক্রান্ত বৃদ্ধের৷

মালদহ থানার পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। অভিযুক্ত শ্যাম হালদার ও মন্টু হালদার ঘটনার পর থেকে গা ঢাকা দিয়েছে। তাদের খোজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ৷

শ্রমিকদের মজুরির দাবিতে রাজ্যের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের হুমকি তৃণমূল নেতার

প্রদ্যুত দাস, জলপাইগুড়ি: ‘ডানকানস হঠাও, চা বাগান বাঁচাও’ – এই শ্লোগান তুলে উত্তরবঙ্গের তরাই ডুয়ার্সের চা বাগান এলাকায় আন্দোলনে পথে নামার হুঁশিয়ারিও দিলেন তৃণমূল চা বাগান শ্রমিক সংগঠনের নেতৃত্ব।

আরও পড়ুন- বর্ধমানে সরকার নির্মিত ঘরেই চলছিল চোলাই মদের কারবার

– Advertisement –

আরও পড়ুন- মুকুলের সঙ্গে নৈশভোজে অধীর-দীপা, বিজেপি যোগের সম্ভাবনা প্রবল

শনিবার জলপাইগুড়িতে রাজ্যের শ্রম মন্ত্রী মলয় ঘটকের সঙ্গে দেখা করে তৃণমূল চা বাগান শ্রমিক সংগঠনের নেতৃত্ব৷ তাঁর সামনেই এই দাবিতে আন্দোলনের পথে নামার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন আলিপুরদুয়ার জেলার তৃণমূল সভাপতি মোহন শর্মা। তিনি বলেন, উত্তরবঙ্গের তরাই ডুয়ার্সে ডানকানস গ্রুপের ১২ টি চা বাগানের শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি দেওয়া হয় না। বাগিচা শ্রম আইন লঙ্ঘন করে বাগান চালাচ্ছে বাগান কর্তৃপক্ষ। অবিলম্বে এই বিষয়ে রাজ্য সরকারের প্রয়োজনীয় হস্তক্ষেপের দাবি জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন- পুলওয়ামা কাণ্ডের পরে ভারতীয় সেনায় যোগ দিয়েছে শতাধিক কাশ্মীরি

আরও পড়ুন- ‘মুকুল শিষ্য’ সব্যসাচীকে সরাতে সুজিতের বাড়িতে গোপন বৈঠক ফিরহাদের

এদিন এই প্রসঙ্গে মন্ত্রী মলয় ঘটক বলেন, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে এই বিষয়ে আলোচনা করে সমস্যা মেটানোর চেষ্টা করা হবে। এদিন অন্য এক প্রসঙ্গে আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদের মেন্টর তথা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মোহন শর্মা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে অচলাবস্থায় থাকা এবং পরবর্তীতে ২০১৮ সাল থেকে বন্ধ হয়ে যাওয়া ডিমডিমা চা বাগান সোমবার থেকে খুলে যাবে। এই বাগানের প্রায় ১৫০০ শ্রমিক দীর্ঘদিন ধরেই অসহায় অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন। রাজ্য সরকারের হস্তক্ষেপেই এই বাগান খুলছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন- ভারতে পাক ড্রোনের প্রবেশের পর সীমান্ত লক্ষ্য করে গুলি চালাল পাকিস্তান

আলোর মালায় সাজছে ঐতিহাসিক বালুরঘাট

শংকর দাস, বালুরঘাট: অত্যাধুনিক পথবাতিতে আলোকিত হবে বাণরাজার শহর। দক্ষিণ দিনাজপুরের পৌরাণিক নিদর্শনের পীঠস্থান গঙ্গারামপুর শহরকে আধুনিক করে তুলতে বিশেষ ভাবে উদ্যোগ নিয়েছে স্থানীয় পুরসভা।

এই গঙ্গারামপুরেই অবস্থিত পাল সেন সুলতান সহ একাধিক আমলের ধংসাবশেষের গড় বাণগড়। পৌরাণিক রাজা বাণের নাম থেকে এখানকার নাম হয়েছিল বাণগড়। কথিত আছে শ্রীকৃষ্ণের প্রপৌত্র অনিরুদ্ধর সাথে প্রেম হয়েছিল রাজা বাণের কন্যা উষার। অনিরুদ্ধ উষাকে পালিয়ে নিয়ে গেলে গেলে তাঁকে আটক করে রাখা হয়েছিল। স্বয়ং শ্রীকৃষ্ণ অনিরুদ্ধকে উদ্ধার করে নিয়ে গিয়েছিলেন।

– Advertisement –

এই বাণগড়কে কেন্দ্র করেই চারপাশের এলাকা জুড়ে পুনর্ভবার দুই তীরে গড়ে উঠেছে শহর গঙ্গারামপুর। চেয়ারম্যান প্রশান্ত মিত্রর নেতৃত্বে বর্তমান পুরসভা কর্তৃপক্ষ নতুন ভাবে শহরকে সাজাতে একগুচ্ছ উদ্যোগ নিয়েছে। ইতিমধ্যেই শহরের চৌমাথা মোড়ে বিশ্ববাংলার সুদৃশ্য স্মারকযুক্ত ফোয়ারা বসানো হয়েছে। দূষন মুক্ত শহর ঘোষণা করে গ্রীনসিটি প্রকল্পের কাজও শুরু হয়েছে।

শুক্রবার শুরু হল এই গ্রীনসিটি প্রকল্পেরই অত্যাধুনিক পথবাতির কাজ। উত্তরের শিববাড়ি থেকে দক্ষিণের বোড়ডাঙ্গি পর্যন্ত দীর্ঘ কয়েক কিলোমিটার এলাকায় অক্টাগোনাল বাতি বসাতে খরচ হবে তিন কোটি। অত্যাধুনিক এই পথবাতির কাজ শুরু হওয়ায় খুশি নাগরিকরা। শুধু পথবাতিই নয় ফুটপাত ব্যবসায়ী ও বেকারদের জন্য কর্মসংস্থানের লক্ষ্যেও শিববাড়ি হাট লাগোয়া এলাকায় মার্কেট কমপ্লেক্সেরও কাজের সূচনা এদিন গঙ্গারামপুর পুরসভা করেছে।

গঙ্গারারমপুর পুরসভার চেয়ারম্যান প্রশান্ত মিত্র এদিন জানিয়েছেন যে শহরকে অত্যাধুনিক ও দূষনমুক্ত করতে প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। অধিকাংশরই কাজ ইতিমধ্যে শুরু করে দেওয়া হয়েছে। আগামী এক দুইদিনের মধ্যেই বাকি গুলির কাজ শুরু হয়ে যাবে।

BREAKING: রাহুল গান্ধীর সভার তারিখ পিছল বাংলায়

স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ ও কলকাতা: পিছল কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর সভার তারিখ৷ আগামী ১৫ই মার্চ এই সভা হওয়ার কথা ছিল মালদহে৷ তবে শেষ পাওয়া খবরে জানা গিয়েছে ১৫ নয়, এই সভা হবে আগামী ২৩ তারিখ৷

মালদহের চাঁচলে এই সভা হবে বলে জানা গিয়েছে৷ সভার তারিখ পরিবর্তনের কথা সাংবাদিকদের জানান প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র৷

বিস্তারিত আসছে…

এটিএম ভাঙার চেষ্টা, ধৃত কংগ্রেস নেতার ভাইপো

মালদহ: কালিয়াচক থানার সুজাপুর। রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাংক ইউবিআইয়ের যে শাখাতে বছর খানেক আগে দিন দুপুরে ৩৫ লক্ষ টাকা লুট হয়েছিল। সেই শাখার এটিএম ভাঙ্গার চেষ্টা করে তিনজন স্থানীয় দুষ্কৃতী। ভোর হয়ে যাওয়ায় স্থানীয় জনতা দুজনকে ধরে ফেলে। একজন পলাতক, অন্যজনকে গণপিটুনির পর পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়৷

ধৃতদের বাড়ি কালিয়াচক থানার চাষপাড়া গ্রামে। ধৃতদের মধ্যে একজন স্থানীয় কংগ্রেস নেতার ভাইপো বলে জানা গিয়েছে। শুক্রবার ভোর রাতে এটিএম ভেঙে লুঠের চেষ্টা করে তিন ব্যক্তি বলে অভিযোগ। সেই সময় স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে দুই জনকে ধরে নেয়। চলে উত্তমমধ্যম।

– Advertisement –

এরপর তাদের পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। গত কয়েক বছর আগেই ওই একই জায়গা থেকে ৩৫লক্ষ টাকা খোয়া যায়। এরপরেও নিরাপত্তা বাড়েনি এটিএমের। ইতিমধ্যে এই ঘটনায় ধরা পরে স্থানীয় কংগ্রেসের নেতা সুকুরুলা আলীর ভাইপো ইমরান আলী।

ফলে বড়সড় মাথা এটিএম লুঠের পেছনে রয়েছে বলে অনুমান পুলিশের। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। যদিও এই বিষয় নিয়ে ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ বা কংগ্রেস নেতাদের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায় নি।

মালদহে বার্ষিক বাজেট নিয়ে রাজনীতির অভিযোগ বিরোধী দলের

মালদহ: বার্ষিক বাজেটে একগুচ্ছ প্রকল্পের ঘোষণা ও শিলান্যাস করলেন মালদহ জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌর চন্দ্র মন্ডল৷ বিরোধী দলের অভিযোগ লোকসভা ভোটের আগে প্রকল্পগুলি হাতিয়ার করতে চাইছে শাসক দল৷ তাই এইগুলি নিয়েও রাজনীতি করছে তারা৷ আর এই নিয়েই শুরু হয়েছে শাসক বনাম বিরোধী গোষ্ঠী কোন্দল৷

বৃহস্পতিবার ছিল মালদহ জেলা পরিষদের বার্ষিক বাজেট অধিবেশন। একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পাস হয়ে যায় বাজেট। বিরোধীদের অভিযোগ লোকসভা ভোটের আগে রাজনীতি করছে শাসক দল। ভোটের আগে মানুষকে নিজেদের দলে নিতে শিলান্যস করছে তারা। বাস্তবে কোন কাজ হবে না। ভোট পরবর্তী সময় দেখা যাবে কাজগুলি যে পরিস্থিতিতে ছিল সেখানেই থাকবে। মানুষ সমস্তটায় বুঝতে পারছে। এর জবাব মানুষ নিজেরাই দেবে।

– Advertisement –

মালদহ জেলা পরিষদের বিরোধী নেতা জুয়েল মুর্মু বলেন, জেলা পরিষদের যা কাজ হচ্ছে সব আইন বিরুদ্ধ। শাসকরা নিজেদের অধীনে রেখেই কাজ করছেন। আমাদের কাউকে কাজ দিচ্ছে না। ফলে আমরা এলাকাতে উন্নয়ন করতে পারছি না। এই বাজেটে শুধু শিলান্যাস হবে কাজের কাজ কিছুই হবে না।

মালদহর জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌর চন্দ্র মণ্ডল জানান, এই বছর ৪২২ কোটি টাকার বাজেট পাস হয়েছে। এরমধ্যে ৭৮ কোটি টাকার শিলান্যাস হয়েছে। দ্রুত শিলান্যাস হওয়া কাজগুলি সম্পন্ন হবে। পাশাপাশি বাজেটে যা বরাদ্দ হয়েছে তাও জেলার উন্নয়নের খাতে খরচা করা হবে৷ বিরোধীদের অভিযোগ ভিত্তিহীন। আমরা মানুষের জন্য উন্নয়ন করি তাই কাজ করছি। বিরোধীরা অনেক কিছুই বলবে তাদের কথার কোনও গুরুত্ব নেই। এদিনের বাজেটে উপস্থিত ছিলেন জেলা শাসক কৌশিক ভট্টাচার্য ও জেলা পরিষদের সদস্যরা।

সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধনের প্রস্তুতি পর্যবেক্ষণ মন্ত্রীর

স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: উত্তরবঙ্গের বহু আকাঙ্খিত সার্কিট বেঞ্চ ৯ মার্চ উদ্বোধন হবে৷ জলপাইগুড়ির শহরের স্টেশন রোড এলাকায় সার্কিট বেঞ্চ ভবন প্রাঙ্গণেই গড়ে তোলা হচ্ছে উদ্বোধনী মঞ্চ৷ তৈরির কাজও প্রায় শেষের দিকে৷ তার আগেই বৃহস্পতিবার মঞ্চের কাজ সরেজমিনে খতিয়ে দেখলেন পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব৷

সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধনী মঞ্চে কোথায় কি হবে প্রশাসনিক কর্তাদের সঙ্গে কথা বলে সেই নির্দেশও দিয়ে যান তিনি। পরে তিনি সাংবাদিকদের ক্যামেরার মুখোমুখি তিনি জানান, আগামী ৯ তারিখ জলপাইগুড়িতে উদ্বোধন হতে চলছে উত্তরবঙ্গের মানুষের বহু আকাঙ্খিত কলকাতা হাইকোর্টের সার্কিট বেঞ্চ। ১১ ফেব্রুয়ারি থেকেই শুরু হয়ে যাবে সার্কিট বেঞ্চের বিচারবিভাগীয় কাজ।

– Advertisement –

জানা গিয়েছে, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতিদের পাশাপাশি উপস্থিত থাকবেন রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। এদিন মন্ত্রীর সঙ্গে মঞ্চ নির্মাণ স্থলে উপস্থিত ছিলেন জলপাইগুড়ির জেলাশাসক শিল্পা গৌরিসারিয়া সহ বিভিন্ন প্রশাসনিক আধিকারিকরা।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সোমনাথ পাল, সৈকত চট্টোপাধ্যায় সহ বিভিন্ন আইনজীবী৷ তাঁদের সঙ্গেও কথা বলেন মন্ত্রী গৌতম দেব। আইনজীবী কমল কৃষ্ণ বন্দোপাধ্যায় জানান, দলমত নির্বিষেশে উওরবঙ্গবাসীর আন্দোলনের ফল পেতে চলেছে জলপাইগুড়িবাসী। সকলেই ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

ইতিমধ্যে বুধবার যানজট দূর করতে সার্কিট বেঞ্চের বিপরীতে থাকা রেলের জমির দোকান উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছিল পুরসভা ও পুলিশ৷বুধবার সকাল থেকে প্রশাসনের আধিকারিকদের উপস্থিতিতে দোকান গুলি তুলে দেওয়া হয়েছিল। স্টেশন বাজারে প্রায় ৬০০ টি ছোট বড় দোকান রয়েছে৷ এদিন সার্কিট বেঞ্চের ঠিক বিপরীতে থাকা ২৫ টি দোকান তুলে দেওয়া হয়৷ তবে সার্কিট বেঞ্চ উদ্বোধনের পর ওই দোকানগুলি আবার বসতে পারবে কিনা সেই বিষয়টি পরিষ্কার নয় ব্যবসায়ীদের কাছে।

যদিও বা স্টেশন বাজারের সম্পাদক জেগিন্দ্রর দাসের মতে, আমার ব্যবসায়ীদের পাশে রয়েছি। দোকান যদি তুলে দেওয়া হয় তাহলে বাজারের ভিতরে থাকা ফাকা জায়গার দোকানের ব্যবস্থা করা হবে। এতে সমস্যা সমাধান হবে আশাকরি। এদিকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যানজট সমস্যা সমাধানে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।