সোমবারের বাজারদর জেনে নিন

ছবি: সৌমেন শীল

বিভিন্ন বাজারে এর মাঝে ঘোরাফেরা করছে সবজি থেকে মাছের দাম। বাজার যাওয়ার আগে জেনে নিন আপনার পকেট খরচের পরিমাণ।

সবজি
.চন্দ্রমুখী আলু – ১৪টাকা প্রতিকিলো .
জ্যোতি আলু – ১০টাকাপ্রতিকিলো
.পিঁয়াজ – ২০ টাকা প্রতিকিলো
.আদা – ৬০ টাকা প্রতিকিলো
.রসুন – ৭০ টাকা প্রতিকিলো
. ফুলকপি – ৩০ টাকা প্রতি পিস
.বাঁধাকপি – ২৫ টাকা প্রতি কিলো

.পটল – ১২০টাকা প্রতিকিলো
.ঢ্যাঁড়শ – ৮০-১০০ টাকা প্রতিকিলো
.উচ্ছে – ৪০ টাকা প্রতিকিলো
.বেগুন – ২০-২৫টাকা প্রতিকিলো
.টমেটো – ২০ টাকা প্রতিকিলো
.লঙ্কা – ১০০ টাকা প্রতিকিলো
.কুমড়ো – ৩০ টাকা প্রতিকিলো

– Advertisement –

.পালং শাক – ২০টাকা প্রতি কিলো
.লাল শাক – ১৫ টাকা প্রতি কিলো
.গাজর – ৩০ টাকা প্রতিকিলো
.ঝিঙে – ৬০ টাকা প্রতিকিলো
.ক্যাপসিকাম – ৪০ টাকা টাকা প্রতিকিলো
.পিঁয়াজকলি – ৩০ টাকা প্রতি কেজি
সজনে ডাঁটা – ১৫০ তাকা প্রতি কেজি

মাছ
.গোটারুই –১৬০-২২০ টাকা কিলো
.কাটারুই – ২০০-৩০০ টাকা কিলো
.গোটাকাতলা – ২৫০-২৮০ টাকা কিলো
.কাটাকাতলা –৩৫০-৪০০টাকা কিলো
.বাটা – ১৬০-১৮০ টাকা কিলো
.চারাপোনা – ১৬০ টাকা কিলো

.তেলাপিয়া – ১৬০টাকা কিলো
.পাবদা – ৫০০ টাকা প্রতি কিলো
.পার্শ্বে –৪০০-৫০০ টাকা প্রতি কিলো
.ভেটকি -৪০০-৫৫০ টাকা প্রতি কিলো
.চিংড়ি – গলদা ৫০০ থেকে ৮০০-এর মধ্যে
.বাগদা – ৫০০-১০০০ টাকা প্রতি কিলো

মাংস
মুরগি কাটা – ১৮০ টাকা প্রতি কিলো
মুরগি গোটা – ১২০ টাকা প্রতি কিলো
পাঁঠা – ৬০০ টাকা প্রতিকিলো

চাকরি বদলালে আপনা আপনি পুরনো সংস্থা থেকে নতুনে পিএফের টাকা

নয়াদিল্লি: চাকরি বদলালে প্রভিডেন্ড ফান্ডের টাকা নিয়ে ঝামেলা অনেক কমতে চলেছে ৷ কারণ আগামী অর্থবর্ষ থেকে চাকরি বদলালে পুরনো সংস্থায় কর্মী প্রভিডেন্ট ফান্ডের (ইপিএফ) জমা টাকা নতুন সংস্থার অ্যাকাউন্টে আপনা আপনি জমা হয়ে যাবে৷

শ্রমমন্ত্রক সূত্রে খবর, নয়া ব্যবস্থা চালু হলে চাকরি পরিবর্তনের কথা জানিয়ে আর আলাদা করে পিএফের টাকা স্থানান্তরিত করার দাবি জানাতে হবে না কর্মীদের। পরীক্ষামূলক ভাবে এই ব্যবস্থা ইতিমধ্যেই চালু হয়েছে। সমস্ত ইপিএফ সদস্যের জন্য তা পরের অর্থবর্ষে শুরু হয়ে যাবে বলেই তাঁর মত।

– Advertisement –

বর্তমান নিয়ম অনুসারে, কোনও কর্মী সংস্থা পাল্টালে তখন নতুন নিয়োগকারীকে তাঁর ইউনিভার্সাল অ্যাকাউন্ট নম্বর (ইউএএন) দিতে হয়। তখন নতুন সংস্থাটি পিএফের টাকা দেওয়ার সময়ে সেই নম্বরটি ব্যবহার করে। ফলে আগের সংস্থায় জমা পড়া পিএফ এবং তার উপরে পাওয়া সুদের তথ্য সেখানে থাকে না৷ আর সেই তথ্য নতুন অ্যাকাউন্টে দিতে আবার অনলাইনে আবেদন করতে হয় সেই কর্মীকে। তখনই একমাত্র সেই টাকা নতুন অ্যাকাউন্টে আসতে পারে।

কিন্তু নয়া ব্যবস্থায় এবার নতুন সংস্থা নতুন কর্মীর ইউএএন-সহ পিএফের রিটার্ন জমা দেবে, তখনই পুরনো সংস্থায় জমা হওয়া টাকাও সেখানে জমা পড়ে যাবে। এক্ষেত্রে ইউএএন নম্বর কিছুটা ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মতো কাজ করবে। ফলে ওই কর্মী যত বারই চাকরি পরিবর্তন করুন না কেন, ইউএএনের মাধ্যমেই সারাজীবন তাঁর সামাজিক সুরক্ষার অর্থ নিশ্চিত থাকবে।

মোদী সরকারের আম্বানি প্রেমে ধুঁকছে BSNL

স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: বিএসএনএলকে হাতিয়ার করে ফায়দা লুঠছে বেসরকারি টেলিকম সংস্থাগুলি৷ একদিকে বিএসএনএলকে চক্রান্ত করে রুগ্ন করে তোলা হচ্ছে৷ অন্যদিকে বিএসএনএলকে বাঁচিয়ে রাখার মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেওয়া হচ্ছে। বর্ধমানে টেলিকম কর্মী ইউনিয়নের দ্বিতীয় বিভাগীয় সম্মেলনে যোগ দিতে এসে ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক বিশ্বনাথ দত্ত এমনটাই অভিযোগ করেন৷

একইসঙ্গে তিনি রীতিমত বিস্ফোরক অভিযোগ তুলেছেন কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের টেলিকম দফতরের মন্ত্রীর বিরুদ্ধে। তাঁর অভিযোগ, ভারতীয় দূর সঞ্চার নিগম লিমিটেড বা বিএসএনএলকে কার্যত পরিকল্পনা করেই রুগ্ন করে তোলা হচ্ছে। অথচ ২০০১ সালে ভারত সরকার একটি চুক্তি করেছিল৷ সেখানে জানিয়েছিল গোটা ভারতবর্ষের দ্বিতীয় লাইফ লাইন এই বিএসএনএল। তাই কোনোভাবেই এই সংস্থাকে রুগ্ন হতে দেওয়া হবে না।

– Advertisement –

সম্প্রতি টেলিকম দফতরের মন্ত্রী মনোজ সিং-র অধীনে রেলের ৪৭ হাজার টেলিফোন লাইন তৈরির জন্য যে টেণ্ডার ডাকা হয় সেই টেণ্ডার প্রক্রিয়ায় সর্বনিম্ন দরপত্র দিলেও এবং সমস্তরকম পরিকাঠামো থাকা সত্ত্বেও বিএসএনএলকে সেই টেণ্ডার দেওয়া হয়নি। পরিবর্তে কোনো পরিকাঠামো না থাকা সত্ত্বেও এই টেণ্ডার পাইয়ে দেওয়া হয়েছে মুকেশ আম্বানীর গ্রুপকে।

যেহেতু সামনেই লোকসভা ভোট তাই বিজেপি নিজেদের প্রচারকে তুলে ধরতে সেই মুকেশ আম্বানীদের সুবিধা পাইয়ে দিয়েছে বলে বিস্ফোরক অভিযোগ তুললেন তিনি৷ একদিকে রাফায়েল নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে৷ সেইসময় কেন্দ্রীয় টেলিকম মন্ত্রীর বিরুদ্ধেই এই অনৈতিক সুযোগ পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন তিনি। যা নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

তিনি জানিয়েছেন, একটু একটু করে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে সরকারি এই সংস্থাকে। এমনকি দীর্ঘদিন ধরেই বাম ট্রেড ইউনিয়ন বিএসএনএলে সংখ্যাগরিষ্ঠ হিসাবে থেকে গেলেও এই বিষয়ে কার্যত তাঁদের ভূমিকাও প্রশ্নের মুখে দাঁড়িয়েছে। এখনও গত ফেব্রুয়ারি মাসের বেতন পাননি রাজ্যের প্রায় ১১ হাজার কর্মী। এর সঙ্গে চুক্তিভিত্তিক কর্মীদেরও বেতন কোথাও ২ মাস আবার কোনো সার্কেলে ৩ মাস পর্যন্ত বকেয়া পড়ে রয়েছে।

প্রতি মাসে বিএসএনএলের কর্মীদের বেতন দিতে ৭০০ কোটি টাকা লাগে যা বিএসএনএলের ১০দিনের আয়। কিন্তু কর্মীদের বেতন না হওয়ায় বিএসএনএলের রুগ্নতাই প্রকাশিত হচ্ছে। একদিকে যেমন সাধারণ মানুষ তিতিবিরক্ত হয়ে উঠছেন বিএসএনএলের পরিষেবায়৷ তখন তার চাপ পড়ছে কর্মীদের উপর। কিন্তু কর্মীরা সেই কাজ করতে গেলে তারা দফতরের কোনো সহযোগিতা পাচ্ছেন না।

এদিন এই সম্মেলনে বিএসএনএলের বেসরকারিকরণ, রুগ্ন করে দেওয়ার বিরুদ্ধে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এরই পাশাপাশি মোট ১০ দফা দাবিকে সামনে রেখে এদিন আলোচনা করা হয়। অন্যান্যদের মধ্য এদিন উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের বর্ধমানের সম্পাদক মানিক কুমার সরকার, ওয়েস্ট বেঙ্গল সার্কেলের সম্পাদক কালীপদ হালদার, বর্ধমানের জেলা কমিটির সদস্য অরুণ রাম প্রমুখরা।

7th pay commission: সরকারী কর্মচারীদের জন্য খুশির খবর

নয়াদিল্লি: সরকারি কর্মচারীদের খুশির খবর৷ সপ্তম বেতন কমিশনের ভিত্তিতে এবার বিহারে সরকারী কর্মচারীদের ডিএ বৃদ্ধি পেতে চলেছে৷ রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তে বিহারের প্রায় চার লক্ষ সরকারি কর্মচারী এবং ছয় লক্ষ পেনশনার লাভবান হবেন বলে জনসত্তা সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা যাচ্ছে৷ তবে এতে রাজ্য সরকারের আর্থিক চাপ বাড়বে বলে জানা যাচ্ছে৷

প্রসঙ্গত, এর আগে, রাজস্থানে অশোক গেহলটের সরকার ১১ লক্ষ কর্মচারীর ডিএ বৃদ্ধি করে৷ সুবিধা পায় পেনশনভোগীরাও৷

ফাইল ছবি

উল্লেখ্য, গত মাসেই ডিএ ঘোষণা করল কেন্দ্রীয় সরকার। বসে মন্ত্রিসভার বৈঠকও। সেখানে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সেগুলির মধ্যে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ সরকারি কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি। এরপর নয়াদিল্লিতে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। তিনি জানান, ৩ শতাংশ ডিএ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই সুবিধা লক্ষাধিক পেনশন গ্রাহকরাও পাবেন। এছাড়াও প্রত্যক্ষভাবে জড়িত লক্ষাধিক সরকারি কর্মী মোদী সরকারের এই সিদ্ধান্তে উপকৃত হবেন বলে জানা যায়৷

– Advertisement –

দীর্ঘদিন ধরে বেতন বৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীরা মোদী সরকারের দিকে তাকিয়ে ছিল। মনে করা হয়েছিল গত বছরের শেষে সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশ মেনে বড়সড় সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু তা না হওয়াতে কিছুটা নিরাশ হতে হয় কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের। কিন্তু ঠিক লোকসভা নির্বাচনের আগে বড়সড় ঘোষণা মোদী সরকারের। ৩ শতাংশ ডিএ ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।

সুদ ঠিক করতে এসবিআই-এর নয়া ব্যবস্থা

মুম্বই: রিজার্ভ ব্যাংক সুদ কমালেও তার সমতা রেখে কমান সুদের হার কমাচ্ছে না বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলি৷ যারফলে কম সুদের সুবিধা সাধারণ মানুষ পাচ্ছে না বলে এমন অভিযোগ বার বারই উঠেছে ৷ ইতিমধ্যেই এ নিয়ে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলিকে সতর্ক করেছে আরবিআই৷

পাশাপাশি আরবিআই জানিয়েছিল, চাইলে ব্যাংকগুলি সুদ স্থির করার নতুন মাপকাঠি বাছতে পারবে। এবার নয়া পন্থা নিল স্টেট ব্যাংক ৷

– Advertisement –

শুক্রবার এই নয়া মাপকাঠির কথা ঘোষণা করেছে স্টেট ব্যাংক। এরফলে এখন থেকে শর্ত সাপেক্ষে রেপো রেটের (যে সুদে আরবিআইয়ের থেকে স্বল্প মেয়াদে ধার নেয় বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলি) উপর ভিত্তি করে সুদের হার ঠিক করবে তারা। তাছাড়া যাঁদের সেভিংস অ্যাকাউন্টে ১ লক্ষ বা তার বেশি টাকা আছে, তাঁরা রেপো রেটের উপরে ভিত্তি করে সুদ পাবেন।

এছাড়া এক লক্ষ টাকার বেশি ঋণের ক্ষেত্রেও রেপো রেটের উপর ভিত্তি করে সুদের হার ঠিক হবে। তবে শেষ পর্যন্ত এই হার কত হবে, তা নির্ভর করছে ঝুঁকির উপরে।
নতুন নিয়ম ১ মে থেকে কার্যকর হবে।

গত ঋণনীতিতে আরবিআই সুদ ২৫ বেসিস পয়েন্ট কমিয়ে ৬.২৫% করে। এদিকে, বর্তমানে স্টেট ব্যাংকের সেভিংস অ্যাকাউন্টে সুদ ৩.৫০%। নতুন ব্যবস্থা চালু হলে ওই হার এক লাফে ২৭৫ বেসিস পয়েন্ট বেড়ে যাবে। অবশ্য এর মধ্যে যদি রেপো রেট পরিবর্তন না করে রিজার্ভ ব্যাংক।

লন্ডনে ৭৩ কোটি টাকার ফ্ল্যাটে থাকছেন নীরব মোদী

লন্ডন: দেশ ছেড়ে বিদেশে গা ঢাকা দিলেও বিলাসবহুল জীবনযাত্রায় কোনও ছেদ পড়েনি ব্যাংক জালিয়াতিতে অভিযুক্ত নীরব মোদীর৷ শনিবার সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয় যেখানে ‘ফেরার’ নীরব মোদীকে লন্ডনের রাস্তায় স্বাচ্ছন্দ্যে হাঁটাচলা করতে দেখা যায়৷ তারপরেই পলাতক হীরে ব্যবসায়ীর বিলাসবহুল জীবনযাত্রার কিছু তথ্য সংবাদমাধ্যমের হাতে আসে৷ লন্ডনে নীরব মোদী একটি ফ্ল্যাটে থাকছেন৷ যেটির দাম ভারতীয় মুদ্রায় ৭৩ কোটি টাকা৷ এছাড়া ভিডিও ফুটেজে নীরব মোদীকে যে জ্যাকেট পড়ে থাকতে দেখা গিয়েছে সেটির দাম ৮ লক্ষ টাকা৷

বিস্তারিত আসছে….

বহাল তবিয়তে লন্ডনে হীরের ব্যবসা শুরু পলাতক মোদীর

নয়াদিল্লি: পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংকের হাজার হাজার কোটি টাকা নয়ছয় করে বিদেশে গা ঢাকা দিয়েছেন সেলিব্রিটি হীরে ব্যবসায়ী নীরব মোদী৷ সেই তিনি বিদেশের মাটিতে নতুন করে হীরের ব্যবসা শুরু করেছেন৷ লন্ডনের একটি সংবাদমাধ্যমে তেমনই দাবি করা হয়েছে৷

এরই মাঝে নীরব মোদীর একটি ফুটেজ সামনে আসে৷ যেখানে তাঁকে লন্ডনের রাস্তায় হাঁটতে দেখা গিয়েছে৷ গোলাপি শার্ট, কালো জ্যাকেট ও গাল ভরতি দাঁড়ি নিয়ে রাস্তায় হাঁটছেন মোদী৷ তাঁকে জিজ্ঞাসা করা হয়, কতদিন থাকবেন লন্ডনে? দু’মিনিটের ভিডিওতে কম করেও ছ’বার এই প্রশ্ন তাঁকে করা হয়৷ প্রতিবারই একই উত্তর দিয়েছেন, ‘‘নো কমেন্ট৷’’ এরপর একটি ক্যাবে উঠে এলাকা ছাড়েন নীরব মোদী৷

‘দ্য টেলিগ্রাফ’ রিপোর্ট অনুযায়ী বিদেশে গিয়েও মোদীর ঠাটবাটে কোনও ছেদ পড়েনি৷ ভিডিও ফুটেজে ব্ল্যাক অসট্রিচ জ্যাকেটে তাঁকে দেখা গিয়েছে যার দাম ১০ হাজার ডলার৷ ভারতে তাঁর হীরের সামাজ্র্যের পতন ঘনিয়ে এলেও বিদেশে গিয়ে তাঁকে অর্থসঙ্কটে পড়তে হয়নি৷ অন্তত এমন খবর শোনা যায়নি৷

এদিকে এখন বিদেশে নতুন করে ব্যবসা শুরু করেছেন নীরব মোদী৷ লন্ডনেরর পশ এলাকা বলে পরিচিত সোহোতে হীরের ব্যবসা শুরু করেছেন৷ রিপোর্টে বলা হয়েছে, তাঁকে দেখা বোঝাই মুশকিল ভারতে এতবড় ঘোটালা ঘটিয়ে এসেছেন৷ নির্বিকার চেহারায় প্রতিদিন পোষ্য কুকুরকে নিয়ে অ্যাপার্টমেন্ট থেকে ডায়মন্ড কোম্পানির অফিসে হাঁটাচলা করেন৷

ক্যানসার ওষুধের দাম কমল সর্বাধিক ৮৭ শতাংশ

নয়াদিল্লি: ক্যানাসার রোগীদের জন্য সুখবর৷ দাম কমল ক্যানসার ওষুধের৷ দ্য ন্যাশনাল ফার্মাসিউটিক্যাল প্রাইসিং অথরিটি দাম কমেছে এমন ক্যানসার ওষুধের তালিকা ঝুলিয়েছে৷ তাতে দেখা গিয়েছে ৩৯০টি ক্যানসার ওষুধের দাম সর্বোচ্চ ৮৭ শতাংশ কমেছে৷ এছাড়া বেন্ডামুস্টাইন, বোর্টিজোমিব এবং পিমিটারএক্সেড সহ ৩৮টি ওষুধের দাম কমেছে ৭৫ শতাংশের বেশি কমেছে৷

রাসায়নিক ও সার মন্ত্রকের অধীন দ্য ন্যাশনাল ফার্মাসিউটিক্যাল প্রাইসিং অথরিটি একটি বিবৃতি জারি করে এই খবর জানায়৷ সেখানে বলা হয়েছে ৩৯০টি অ্যান্টি ক্যানসার নন সিডিউল মেডিসিনের দাম ৮৭ শতাংশ অবধি কমানো হয়েছে৷ ৮ মার্চ থেকে এই বিধি কার্যকর হবে৷

ছবি: প্রতীকী

সরকারের এই সিদ্ধান্তে ২২ লক্ষ ক্যানসার রোগী উপকৃত হবেন৷ হিসেব কষে দেখা গিয়েছে এতে অন্তত তাদের বার্ষিক ৮০০ কোটি টাকা বাঁচবে৷ ৩৯০টি ওষুধের মধ্যে কোন ওষুধে কত টাকা ছাড় দেওয়া হবে তা স্পষ্ট বলা হয়েছে৷ যেমন ৩৮টি ব্র্যান্ডের ওষুধের উপর ৭৫ শতাংশ বা তার একটু বেশি ছাড় মিলবে৷ ১২৪টি ব্র্যান্ডের ওষুধে ৫০ থেকে সর্বাধিক ৭৫ শতাংশ ছাড় পাওয়া যাবে৷ আর ১২১টি ওষুধের উপর ২৫ থেকে ৫০ শতাংশ অবধি ছাড় দেওয়া হবে৷ আর ১০৭টি ব্র্যান্ডের ওষুধের উপর ২৫ শতাংশের কম ছাড় পাওয়া যাবে৷

সুখবর: রাজ্য সরকারি কর্মীদের জন্যে ডিএ ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

গুয়াহাটি: সামনেই লোকসভা নির্বাচন। আর সেই নির্বাচনের আগে সরকারি কর্মীদের মন জয়ের চেষ্টা রাজ্য সরকারের। রাজ্যের সরকারি কর্মীদের জন্যে ডিএ ঘোষণা অসম সরকারের। বৃহস্পতিবার রাজ্যের সরকারি কর্মীদের জন্যে ৩শতাংশ মহার্ঘ ভাতা ঘোষণা করেছে। যা কিনা চলতি বছরের জানুয়ারি থেকেই কার্যকর করা হবে বলে জানা হয়েছে। পাশাপাশি চলতি মাসে রাজ্যের কর্মীদের এরিয়ারও দিয়ে দেওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে।

অসম সরকারের এই ঘোষণায় উপকৃত হবেন সে রাজ্যের লক্ষাধিক সরকারি কর্মচারী। এমনকি, লক্ষাধিক পেনশনভোগীও রাজ্য সরকারের এই ঘোষণায় উপকৃত হবে।

– Advertisement –

প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন ধরেই বেতন বৃদ্ধির দাবি ছিল অসম সরকারী কর্মচারীদের। অবশেষে লোকসভা ভোটের আগে রাজ্য সরকারী কর্মচারীদের জন্যে ডিএ ঘোষণা করে কার্যত মাস্টারস্ট্রোক রাজ্য সরকারের।

নারী দিবস পালন হলেও লিঙ্গভেদে বেতন বৈষম্য বহাল

নয়াদিল্লি: এটা ঘটনা মহা সমারোহে ইদানিং নারী দিবস পালন করতে দেখা যাচ্ছে৷ কিন্তু নারী পুরুষের মধ্যে বেতন বৈষম্য এখনও রয়েছে এদেশে৷ কর্মক্ষেত্রে পুরুষেরা নারীদের থেকে ১৯ শতাংশ বেশি বেতন পেয়ে থাকেন৷ এমন তথ্যই দিচ্ছে মনস্টার স্যালারি ইনডেক্স সার্ভের সাম্প্রতিক রিপোর্ট।

ওই রিপোর্ট অনুসারে, প্রতি ঘণ্টা কাজ করার জন্য মহিলারা ১৯৬.৩০ টাকা পেলেও, পুরুষরা একই কাজ করে ১৯% বেশি পান অর্থাৎ তারা পান ২৪২.৪৯ টাকা।আগের বছরে নারী-পুরুষের মধ্যে বেতনের ফারাক ছিল ২০% ৷ এবার ১ শতাংশ কমলেও তা যে যথেষ্ঠ তা বলাই বাহুল্য৷

ফাইল ছবি

সমীক্ষা চালানোয় জানা গিয়েছে, অর্ধ-শিক্ষিত (সেমি-স্কিলড) কর্মীদের মধ্যে লিঙ্গ ভেদে বেতনে কোনও ফারাক তেমন নজরে না এলেও, দক্ষ কর্মীদের (স্কিলড) ক্ষেতের এই ফারাকটা প্রকট ভাবে দেখা গিয়েছে৷ অতি দক্ষ (হাইলি স্কিলড) কর্মীদের ক্ষেত্রে পুরুষকর্মীরা মহিলাদের ৩০ শতাংশের বেশি বেতন পেতে দেখা গিয়েছে৷ তবে বিশ্লেষণ করে দেখা গিয়েছে শুধু লিঙ্গভেদের জন্যই এই ফারাক তা নয় এর পিছনে অভিজ্ঞতাও কাজ করছে৷ সমীক্ষায় উঠে এসেছে মহিলাদের চেয়ে পুরুষরা চাকরির অভিজ্ঞতায় এগিয়ে থাকছে ৷ ১০ বছর বা তার বেশি অভিজ্ঞতা থাকলে বেতন ১০ শতাংশ বেশি পায় পুরুষেরা৷

– Advertisement –

তাছাড়া পেশাগত ভিত্তিতে এই লিঙ্গ বৈষম্য বিশ্লেষন করা হয়েছে ৷ সেখানে দেখা যাচ্ছে, তথ্য প্রযুক্তি ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি প্রায় ২৬ শতাংশ৷ তারপরে রয়েছে নির্মাণ ও স্বাস্থ্য পরিষেবায় যথাক্রমে ২৪ শতাংশ এবং ২১ শতাংশ৷ বরং ব্যাংকিং ক্ষেত্রে এই বৈষম্য তুলনায় অনেক কম৷ লিঙ্গভেগে এই ফারাকটা ২ শতাংশের কম৷