যশোর রোডে গাছ কাটতে মিলল হাইকোর্টের অনুমতি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: উন্নয়নের স্বার্থে কোপ পড়ুক সবুজায়নে৷ আপত্তি নেই আদালতের৷ তবে একটি গাছ কাটলে বসাতে হবে পাঁচটি গাছ৷ সঙ্গে দেওয়া হল এই শর্তও৷

শুক্রবার যশোর রোডে গাছ কাটা নিয়ে এই রায় দিয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি জ্যোর্তিময় ভট্টাচার্য ও বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ৷

আরও পড়ুন: ধর্ষণের সুবিচার মেলেনি, ছেলে-সহ অগ্নিদগ্ধ মা

– Advertisement –

৩৫ নম্বর জাতীয় সড়কে বারাসাত থেকে বনগাঁর মধ্যে রাজ্য সরকার পাঁচটি রেল ওভারব্রিজ তৈরি করতে চায়৷ ওই কাজ করতে গেলে ৩৫৬টি গাছ কাটার প্রয়োজন৷ কিন্তু যশোর রোডের ধারে থাকা ওই গাছগুলি কাটতে দিতে নারাজ স্থানীয় বাসিন্দা থেকে শুরু করে একাধিক মানবাধিকার সংগঠন৷

সেই সংগঠনগুলির মধ্যে একটি এপিডিআর-এর তরফে কলকাতা হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়৷ শুক্রবার সেই মামলার রায় দিল হাইকোর্ট৷ জানিয়ে দিল, রাজ্য সরকার ওই ৩৫৬টি গাছ কাটতে পারবে৷ তবে যতগুলি গাছ কাটা হবে, তার পাঁচগুণ গাছ বসাতে হবে রাজ্য সরকারকে৷

আরও পড়ুন: মোমো আতঙ্ক এবার সোনারপুরে

যদিও হাইকোর্টের রায় এখনই কার্যকর হচ্ছে না৷ বরং তা প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ স্থগিত করে দিয়েছে৷ আর তা করা হয়েছে মামলাকারীর আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যর আবেদনের ভিত্তিতে৷ তিনি আদালতে জানান, তাঁরা একটি গাছ কাটারও বিরুদ্ধে। তাই এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিমকোর্টে আবেদন জানাবেন। এই রায়ের উপর স্থগিতাদেশের আবেদন জানান তিনি৷

ওই আবেদন মঞ্জুর করে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ। আগামী তিন সপ্তাহের জন্য এই রায় স্থগিত থাকবে বলেই আদালত জানিয়েছে।

আরও পড়ুন: পুজোর আগে বাড়ান ত্বকের জেল্লা

Advertisement

ধর্ষণের সুবিচার মেলেনি, ছেলে-সহ অগ্নিদগ্ধ মা

লখনউ: গণধর্ষণের শিকার হতে হয়েছিল৷ দিনটা ছিল ১৮ই অগাস্ট৷ পুলিশের কাছে ছুটে গিয়েছিলেন অভিযুক্তদের শাস্তির দাবি নিয়ে৷ কিন্তু সুবিচার মেলেনি৷ অপমানে মানসিক যন্ত্রণায় গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মঘাতী হলেন ২৭ বছরের মহিলা৷ সঙ্গে নিয়েছিলেন নিজের ১২ বছরের ছেলেকেও৷ কিন্তু বেঁচে গিয়েছে সে৷

এই লজ্জার সাক্ষী থাকল উত্তরপ্রদেশের সাহাজাহানপুর৷ শরীরে ৯৫ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল তাঁর৷ গুরুতর আহত অবস্থায় ভরতি করা হয় জেলা হাসপাতালে৷ তবে বাঁচানো যায়নি৷

আরও পড়ুন: মোমো আতঙ্ক এবার সোনারপুরে

– Advertisement –

১২ বছরের ছেলেটির শরীরের ১৫ শতাংশ পুড়ে যায়৷ আপাতত সে স্থিতিশীল সে৷ শুক্রবার সকালে তার মায়ের মৃত্যু হয় হাসপাতালে৷ মৃত্যুকালীন জবানবন্দীতে মহিলা জানিয়েছে পুলিশ তার কোনও কথাই শুনতে রাজী হয়নি৷ বারবার পুলিশের দ্বারস্থ হয়ে সে নিজের নির্যাতনের কথা বলতে চেয়েছিল৷ কিন্তু কাজের কাজ হয়নি কিছুই৷

পুলিশকে ওই মহিলার স্বামী জানান, যখন মহিলা আত্মহত্যা করেন, তখন তিনি বাড়িতে ছিলেন না৷ মহিলা ও তার ছেলেই ছিল৷ ওই ব্যক্তির আরও অভিযোগ গ্রামেরই তিন জন ১৮ই অগাস্ট তাঁর স্ত্রীকে গণধর্ষণ করে৷ তাদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে পুলিশ কোনও সহযোগিতা করেনি৷ কোনও অভিযোগও নেয়নি৷ প্রায় একমাস ধরে ওই দম্পতি পুলিশের কাছে গিয়ে ফিরে এসেছে৷

আরও পড়ুন: পুজোর আগে বাড়ান ত্বকের জেল্লা

কোনও অভিযোগই দায়ের করেনি পুলিশ বলে দাবি ওই পরিবারের৷ উলটে অভিযুক্তদের থেকে টাকা নিয়ে গোটা বিষয়টি মিটিয়ে নিতে বলে পুলিশ৷গোটা ঘটনায় তিন পুলিশ কর্মীকে সাসপেন্ড করা হয়েছে৷ একটি মামলাও দায়ের করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে৷

মৃত্যুকালীন জবানবন্দী কোনও ক্রমে রেকর্ড করা গিয়েছে বলে জানিয়েছেন এক সরকারি আধিকারিক৷ ওই মহিলার স্বামী একটি এফআইআর দায়ের করেছেন ওই তিন ব্যক্তির বিরুদ্ধে৷ একজনের নামও উল্লেখ করা হয়েছে৷ তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ বলে জানিয়েছেন সাহাজাহানপুরের পুলিশ আধিকারিক শিবাসিম্পি চানাপ্পা৷

আরও পড়ুন: জন্মাষ্টমীর শোভাযাত্রায় শক্তি প্রদর্শন প্রয়োজন: বিশ্বহিন্দু পরিষদ

পুলিশ সূত্রের খবর প্রথমে ওই মহিলাকে গণধর্ষণ করা হয়৷ পরে তাঁর ছেলেকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ঘটনা প্রকাশ্যে না আনার কথা বলে৷ তবে ওই মহিলা নিজের স্বামীকে সব কথা জানান৷

তারপর ওই দম্পতি পুলিশের কাছে যান৷ কিন্তু কোনও লাভ হয়নি৷ পুলিশের কাছে যাওয়ায় ফের মহিলার ওপর চড়াও হয় দুষ্কৃতীরা৷ পুলিশের থেকে কোনও সাহায্য না পাওয়ায় মহিলা মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন বলে জানা গিয়েছে৷

আরও পড়ুন: পুলিশি অভিযানে বীরভূমবাসীর মোবাইল প্রাপ্তি

Advertisement

মোমো আতঙ্ক এবার সোনারপুরে

স্টাফ রিপোর্টার, সোনারপুর: এবার মোমো আতঙ্ক ছড়াল দক্ষিণ ২৪ পরগনার সোনারপুরে। ঘটনাটি ঘটেছে সোনারপুর থানার রাজপুর দোলতলা এলাকায়। সেখানকার বাসিন্দা বিএ প্রথম বর্ষের এক ছাত্রীর মোবাইল ফোনে বৃহস্পতিবার দুপুরে আচমকাই এই মোমো মেসেজ আসে।

আরও পড়ুন: পুজোর আগে বাড়ান ত্বকের জেল্লা

ঘটনার পর থেকে যথেষ্ট আতঙ্কিত হয়ে পড়েন কাঁকন রায় নামে ওই তরুণী। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার রাতেই তিনি সোনারপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন৷

– Advertisement –

আরও পড়ুন: জন্মাষ্টমীর শোভাযাত্রায় শক্তি প্রদর্শন প্রয়োজন: বিশ্বহিন্দু পরিষদ

বৃহস্পতিবার দুপুর বারোটা নাগাদ সোনারপুর মহাবিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের ছাত্রী কাঁকন রায় তাঁর মোবাইল ফোনে মোমোর মেসেজ পান। ঘটনার পর ওই হোয়াটসঅ্যাপ লিঙ্কটি ব্লক করে দিলেও যথেষ্ট আতঙ্কিত হয়ে রয়েছেন ওই তরুণী। পুলিশের তরফ থেকে এ বিষয়ে ভয় পেতে বারণ করা হয়েছে ওই তরুণীকে।

আরও পড়ুন: পুলিশি অভিযানে বীরভূমবাসীর মোবাইল প্রাপ্তি

Advertisement

পুজোর আগে বাড়ান ত্বকের জেল্লা

রোদে সারাদিন বাইরে থেকে তেতে পুড়ে ত্বকের হাল মারাত্মক খারাপ হয়৷ পাশাপাশি চলে যায় ত্বকের উজ্জ্বলতা৷ সেই উজ্জ্বলতা ফেরাতে আপনাকে কি না কি করতে হয়৷ পারলারে গিয়ে ফেশিয়াল করালেও সেই গ্লো আর ফেলে না৷ অযথা অনেক হুলো টাকা খরচা হয়৷ তাও আপনারা বিভিন্ন দামী কসমেটিক প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে গিয়েও স্কিন খারাপ হয়ে যায়য৷ তাই এই ঘরোয়া পদ্ধতিতে ফিরিয়ে আনুন জ্বেল্লা৷

১) চন্দনের গুঁড়া
এক চামচ চন্দনের গুঁড়োর নিয়ে তার সঙ্গে একটু জল মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন৷ লাগাবার পর ১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

২) লেবুর রস
লেবুর রসে ত্বকের জ্বেল্লা ফেরায়৷ লেবুর রস তুলোয় নিয়ে মুখে লাগাতে থাকুন। ১০-১৫ মিনিট পর জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। লেবু ত্বকে ন্যাচারাল ব্লিচ হিসেবে কাজ করে।

– Advertisement –

আরও পড়ুন:  দেবের “ইয়ে দোস্তি হম নাহি তোড়েঙ্গে” ভার্সান দেখেছেন?

৩) হলুদের গুঁড়া
এক চা চামচ হলুদের গুঁড়োর সঙ্গে সামান্য পরিমাণে গোলাপজল মিশিয়ে একটা প্যাক তৈরি করুন। রাতে ঘুমানোর আগে এই প্যাকটি মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে গোলাপজল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

৪) টক দই
দুই চামচ ঠান্ডা টক দইয়ের সঙ্গে এক চামচ ঠান্ডা দুধ মিশিয়ে মুখে লাগান। শুকনো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। তারপর ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

৫) নারকেল তেল
হালকা গরম করে মুখে এবং ঘাড়ে লাগিয়ে নিন৷ কিছুক্ষণ ভালো করে মাসাজ করুন৷ সারা রাত রেখে দিন৷ সকালে উঠে ধুয়ে ফেলুন৷

৬) অ্যালোভেরা জেল
এক চামচ অ্যালোভেরা জেল নিয়ে এক চিমটে হলুদগুঁড়ো মেশান৷ তাতে এক চামচ করে মধু এবং দুধ মিশিয়ে দিন৷ মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট রাখুন৷ তারপর হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন৷

Advertisement

জন্মাষ্টমীর শোভাযাত্রায় শক্তি প্রদর্শন প্রয়োজন: বিশ্বহিন্দু পরিষদ

শেখর দুবে, কলকাতা: শ্রীকৃষ্ণের জন্ম উপলক্ষ্যে রবিবার রাজ্য জুড়ে শোভাযাত্রার আয়োজন করেছে বিশ্বহিন্দু পরিষদ। সংগঠনের পূর্বাঞ্চলের সম্পাদক শচীন সিংহ Kolkata24x7-কে বলেন, “কলকাতা, শহরতলি এবং রাজ্যের বিভিন্ন ব্লকে এই শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়েছে।” শচীন সিংহের দাবি, এই শোভাযাত্রাগুলিতে ১০০০-এরও বেশি মানুষ যোগ দেবেন।

আরও পড়ুন: পুলিশি অভিযানে বীরভূমবাসীর মোবাইল প্রাপ্তি

কেমন হবে এই শোভাযাত্রা? গতবারের রামনবমীর মতো রাজ্যজুড়ে অস্ত্র হাতে রাস্তায় নামবে গেরুয়া শিবির? এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, “না, এই শোভাযাত্রায় কোনও রকম অস্ত্র ব্যবহার করব না আমরা। বাংলায় শ্রীকৃষ্ণের একটা ভাবমূর্তি রয়েছে। সেই মতো ধর্মীয় শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হবে। শ্রীকৃষ্ণ সেজে ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা শোভাযাত্রায় উপস্থিত থাকবে।”

– Advertisement –

আরও পড়ুন: পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দলে উত্তেজনা

গত বছর রামনবমীর মিছিলে অস্ত্র হাতে প্রচুর মানুষকে দেখা গিয়েছিল। বাংলার বুদ্ধিজীবীরা অভিযোগ করেছিলেন, এই ধর্মীয় শোভাযাত্রা আসলে রাজনৈতিক। বিজেপি বিরোধী শিবিরের অভিযোগ ছিল শ্রদ্ধা নয়, শক্তি প্রদর্শনের জন্য এই মিছিল।

আরও পড়ুন: বিরাট বিশ্রামে নেতা রোহিত

এবারেও উঠতে পারে একই রকম অভিযোগ। কিন্তু সে সবের তোয়াক্কা না করে বিশ্বহিন্দু পরিষদের পূর্বাঞ্চলের সম্পাদক সরাসরি বলেন, “এখানে কোনও রাজনীতির ব্যাপার নেই। এটা সব হিন্দুদের একত্রিত করার উৎসব। তবে শোভাযাত্রার মধ্যে দিয়ে শক্তি প্রদশর্নের অবশ্যই গুরুত্ব রয়েছে। এতে অ-হিন্দু জেহাদি গোষ্ঠীর কাছে বার্তা পৌঁছানো যায় যে হিন্দুরা একত্রিত হয়ে রাস্তায় নামতে পারে। নিজের ধর্মাচরণও করতে পরে।”

আরও পড়ুন: দেশের প্রথম রূপান্তরকামী ক্যাবি মেঘনা

Advertisement

পুলিশি অভিযানে বীরভূমবাসীর মোবাইল প্রাপ্তি

স্টাফ রিপোর্টার, সিউড়ি: হারিয়ে যাওয়া মোবাইল বীরভূমবাসীকে ফিরিয়ে দিতে পুলিশের পক্ষ থেকে একটি দল গঠন করা হয়েছিল৷ দলটির নাম দেওয়া হয়েছিল ‘অপারেশন প্রাপ্তি’৷ দুজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও বিশেষ পুলিশ কর্মীদের নিয়ে এই দলটি গঠন হয়েছিল৷ এই ‘অপারেশন প্রাপ্তি’ শুক্রবার তৃতীয় সাফল্য পেল৷

জানা গিয়েছে, কয়েক মাস ধরেই বীরভূমের আনাচে কানাচে মোবাইল চুরির ঘটনা একের পর এক ঘটে চলছিল৷ চোরদের কিনারা করতে ও হারিয়ে যাওয়া মোবাইল মালিকদের ফিরিয়ে দিতে পুলিশের পক্ষ থেকে একটি দল গঠন করা হয়েছিল৷

আরও পড়ুন: পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দলে উত্তেজনা

– Advertisement –

তৃতীয় অভিযানেও বড়সড় সাফল্য পেল ‘অপারেশন প্রাপ্তি’ নামে পুলিশের এই দলটি৷ বীরভূমবাসীকে ফিরিয়ে দিল ৭০ টি মোবাইল৷ এর আগেও ‘অপারেশন প্রাপ্তি’ দুটি অভিযান চালিয়ে ছিল৷ সেই দুটি অভিযানেও সাফল্য পেয়েছিল দলটি৷ প্রথম দুটি অভিযান ও শুক্রবারের এই অভিযানটি মিলিয়ে মোট ২৫০ টি মোবাইল উদ্ধার করল তাঁরা৷

আরও পড়ুন: বিরাট বিশ্রামে নেতা রোহিত

আরও পড়ুন: দেশের প্রথম রূপান্তরকামী ক্যাবি মেঘনা

এই বিষয়ে বীরভূমের পুলিশ সুপার কুনাল আগারওয়াল বলেন, ‘‘আমরা অপারেশন প্রাপ্তি শুরু করেছি কয়েক মাস হল৷ এখন পর্যন্ত প্রায় ২৫০ টি মোবাইল আমরা উদ্ধার করেছি। আজকে আমরা ৭০ টি মোবাইল তাদের মালিকদের হাতে তুলে দিলাম।’’

আরও পড়ুন: এ এক নতুন শুভশ্রীর কাহিনি! শুনলে চমকে যাবেন আপনি

Advertisement

পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দলে উত্তেজনা

স্টাফ রিপোর্টার, ক্যানিং: পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন ঘিরে উত্তপ্ত গোটা রাজ্য৷ ব্যতিক্রম নয় দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিংও৷ তবে এখানে শাসক ও বিরোধীদের লড়াইয়ের কোনও খবর মেলেনি৷ বরং অভিযোগ, উঠেছে তৃণমূলের দু’টি গোষ্ঠীর মধ্যে৷

ঘটনাস্থল ক্যানিং থানার নিকারিঘাটা গ্রামে৷ বৃহস্পতিবার রাতে সেখানে দফায় উত্তেজনা ছড়ায়৷ স্থানীয়দের একাংশের অভিযোগ, বাড়ি ভাঙচুর থেকে শুরু করে বোমাবাজি, গুলি ছোড়াছুঁড়ি হয়৷ এর জেরে এলাকায় আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়েছে৷

আরও পড়ুন: বিরাট বিশ্রামে নেতা রোহিত

– Advertisement –

স্থানীয়দের একাংশের দাবি, এই গোলমালের সূত্রপাত ভোটের আগে থেকেই৷ তখন টিকিট না পেয়ে একদল কর্মী-সমর্থক বিক্ষুব্ধ হয়৷ তারাই নির্দল হিসেবে ভোটের লড়াইয়ে নেমে পড়ে৷ বেশ কয়েকজন জিতেও যায়৷

অভিযোগ, বৃহস্পতিবার রাতে ওই বিক্ষুব্ধরাই হামলা চালায়৷ তার জেরে কয়েকজন তৃণমূল কর্মী জখমও হন৷ তাঁদের স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়৷

রাতেই ঘটনাস্থলে যায় ক্যানিং থানার পুলিশ৷ তারা গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে৷ এলাকা থেকে বেশ কয়েকটি তাজা বোমা ও গুলির খোল উদ্ধার করেছে ক্যানিং থানার পুলিশ। এলাকায় উত্তেজনা থাকায় রাতভর পুলিশ মোতায়েন করা হয় এলাকায়।

আরও পড়ুন: দেশের প্রথম রূপান্তরকামী ক্যাবি মেঘনা

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ক্যানিংয়ের নিকারিঘাটা গ্রাম পঞ্চায়েতের দখল কার হাতে থাকবে, তা নিয়েই কার্যত গত কয়েকদিন ধরে এই এলাকায় গন্ডগোল চলছে। ওই পঞ্চায়েতের মোট ২১টি আসনের মধ্যে তৃণমূলের হাতে ১১ টি আসন রয়েছে৷ নির্দল তথা যুব তৃণমূলের হাতে আটটি আসন ও দু’টি আসন বিজেপির দখলে রয়েছে। ফলে দু’পক্ষই চাইছে পঞ্চায়েত দখল করতে৷ কারণ, কারও কাছেই বোর্ড গড়ার সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই৷

অভিযোগ, গত কয়েকদিন ধরে তৃণমূলের জয়ী সদস্যদের বিভিন্ন ভাবে হুমকি দেওয়া হচ্ছে যাতে তাঁরা নির্দলদের সমর্থন দেন। আর সেই কারণেই গত কয়েকদিন ধরে এই নির্দলরা এলাকায় সন্ত্রাস ছড়াচ্ছে বলে অভিযোগ তৃণমূল কর্মীদের।

আরও পড়ুন: এ এক নতুন শুভশ্রীর কাহিনি! শুনলে চমকে যাবেন আপনি

তৃণমূল কর্মীদের অভিযোগ, বৃহস্পতিবার রাতে আচমকাই ৫০ জনের বেশি নির্দল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বোমা, বন্দুক নিয়ে চড়াও হয় এলাকায়। বেছে বেছে তৃণমূল কর্মীদের বাড়িতে বোমাবাজি করার পাশাপাশি এলাকায় ব্যাপক গুলিবর্ষণ করে। এমনকী বেশ কয়েকটি তৃণমূল কর্মীদের বাড়িতে চড়াও হয়ে ভাঙচুর চালানো হয়। বাড়ি ঘরের পাশাপাশি ভেঙে দেওয়া হয় মোটর সাইকেল সহ বিভিন্ন আসবাবপত্র।

আরও পড়ুন: জমি অধিগ্রহণে চাষিদের দাবি মেনে নিল রাজ্য সরকার

Advertisement

বিরাট বিশ্রামে নেতা রোহিত

মুম্বই: এশিয়া কাপে ভারতীয় দলে ব্যাপক রদবদলের সম্ভাবনা! শনিবার মুম্বইয়ে বোর্ডের সদর দফতরে এশিয়া কাপের দল বেছে নেবেন জাতীয় নির্বাচকমণ্ডলী৷ দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের আগে বিরাট কোহির উপর থেকে ওয়ার্কলোড কমাতে এশিয়া কাপে বিরাটকে বিশ্রাম দিতে পারেন নির্বাচকরা৷

বিরাটের পরিবর্তে এশিয়া কাপে ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দিতে পারেন রোহিত শর্মা৷ ১৫-২৮ সেপ্টেম্বর সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে বসছে এশিয়া কাপের আসর৷ এই মুহূর্তে ইংল্যান্ডে টেস্ট সিরিজ খেলছে ভারত৷ ইংল্যান্ড সফরের আগে চোটের কারণে কাউন্টি থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন ভারত অধিনায়ক৷ তার পর লর্ডসে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টেও পিঠের ব্যাথায় ভুগেছিলেন বিরাট৷

চলতি বছরের শেষে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের কথা মাথায় রেখে ক্যাপ্টেন কোহলিকে বিশ্রাম দেওয়ার পরামর্শ নিতে চলেছে এমএসকে প্রসাদ অ্যান্ড কোং৷ সুপ্রিম কোর্টের পর ফেরে নির্বাচক পদে ফিরেছেন গগন খোদা ও যতীন পারঞ্জেবে৷ অর্থাৎ পাঁচ নির্বাচকের কমিটি ফের জাতীয় দল বেছে নিতে চলেছে৷ চোট সারিয়ে ভারতীয় দলে ফিরতে চলেছে ডানহাতি পেসার ভুবনেশ্বর কুমার৷ চোটের কারণে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে চলতি টেস্ট সিরিজ থেকে দূরে সরে দাঁড়ান ভুবি৷ তাঁর সঙ্গে এশিয়া কাপে ফেরা নিশ্চিত সুরেশ রায়না এবং অম্বাতি রায়ডুর৷

Advertisement

দেশের প্রথম রূপান্তরকামী ক্যাবি মেঘনা

ভুবনেশ্বর: হিউম্যান রিসোর্স ও মার্কেটিং এর এমবিএ করেও মেলেনি চাকরি। বরং তার লিঙ্গ পরিচয়ের জন্য বারবার অপমান আর গঞ্জনার শিকার হয়েছিলেন। তবে সেখানেই থেমে যাননি হায়দরাবাদের মেঘনা সাহু। তিনিই দেশের প্রথম রুপান্তরকামী ক্যাব চালক।

আরও পড়ুন: এ এক নতুন শুভশ্রীর কাহিনি! শুনলে চমকে যাবেন আপনি

– Advertisement –

আরও পড়ুন: মোমো রুখতে সচেতনতার প্রচারে পুলিশ

৩০ বছর বয়সী সাহু এবার ক্যাব গাড়ি (ওলা) নিয়ে হায়দরাবাদের পথ দাপিয়ে বেড়াবেন। রূপান্তরকামী মেঘনা সর্বভারতীয় সংবাদসংস্থা এএনআইকে একটি সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘‘সকলের মতো আমিও এই চাকরিটা পাওয়ার জন্য প্রচুর পরিশ্রম করেছিলাম। আর একজন রূপান্তরকামী মানুষের ক্ষেত্রে চাকরি পাওয়া, গাড়ি চালানোর ট্রেনিং বা লাইসেন্স পাওয়া খুবই কঠিন ব্যাপার। তবে সুপ্রিম কোর্ট রূপান্তরকামীদের তৃতীয় লিঙ্গের মর্যাদা দেওয়ার পর তা আমাদের জন্য খুবই লাভজনক হয়েছে।’’

আরও পড়ুন: জমি অধিগ্রহণে চাষিদের দাবি মেনে নিল রাজ্য সরকার

পাশাপাশি তিনি মনে করেন মহিলা যাত্রীরা তার গাড়িতে যাত্রা করার ক্ষেত্রে সুরক্ষিত বোধ করবেন। অন্যদিকে পুরুষ যাত্রীদের নিয়েও তার কোনও অসুবিধা নেই বলে জানিয়েছেন মেঘনা। তিনি আরও বলেন, ‘‘আমার যৌন পরিচয়ের জন্যই পুরুষ যাত্রীদের ক্ষেত্রেও ভয় পাই না।এজন্য আমি খুব খুশি।’’

তবে শুরুতে বেশ কিছু বৈষম্যের শিকার হলেও মেঘনা এখন আশাবাদী তাকেও সকলে অন্যদের মতো একই চোখে দেখবে।পাশাপাশি রূপান্তরকামী মানুষদের প্রতি বার্তা, স্বনির্ভর হওয়ার লক্ষ্যে বিকল্প পেশা হিসেবে এই পেশাকে বেছে নিতেই পারেন অন্যান্যরা।

আরও পড়ুন: জাতীয় সড়কে লরি থেকে উদ্ধার ১৫ লক্ষ টাকার মাদক

Advertisement

এ এক নতুন শুভশ্রীর কাহিনি! শুনলে চমকে যাবেন আপনি

কলকাতা: শুভশ্রী। রাজের ঘরনী। টলিউডের নায়িকা। কিন্তু এসবের বাইরেও আছে নায়িকার নিজস্ব কিছু। আপনি হয়ত জানেন না শুভশ্রী খুব ভাল গিটার বাজায়। সম্প্রতি তাঁরই এক ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন সুন্দরী। ক্যপশন, আজ ঠোঁটের কোলাজ থামালো কাজ মন তোমাকে ছুঁয়ে দিলাম।

গিটার বাজিয়ে অভিনেত্রীর গান গাইছেন। যা শুনলে চমকে যাবেন আপনি। গলাটা মন্দ নয় যে নায়িকার। এদিকে আজকাল শুভশ্রী বাংলা ছবিতে এখন ডুমুরের ফুল। বস ২ ও নবাবের পর অনেকদিন তাকে কোনও ছবিতে দেখা যায়নি। তবে দর্শককে হয়তো আর বেশিদিন অপেক্ষা করতে হবে না। পরিচালক পাভেলের আগামী ছবি ‘রসগোল্লা’-তে দেখা যাবে নায়িকাকে।

ছবি: ফেসবুকের সৌজন্যে

ছবিটি নবীন চন্দ্র দাসের জীবন অবলম্বনে তৈরি৷ উনিশ শতকে তিনি কলকাতায় রসোগোল্লা তৈরি করেছিলেন। এই ছবিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র মালকানজান বাঈ। যিনি এক সময় নবীনকে ব্যবসার জন্য তাঁকে টাকা দিয়ে সাহায্য করেছিলেন। সেই চরিত্রে রয়েছেন শুভশ্রী গাঙ্গুলি।

– Advertisement –

আরও পড়ুন: প্রকাশ্যে ঝগড়া করছেন অঙ্কুশ-ঐন্দ্রিলা! গোয়ার সুন্দরীই কী সেই কারণ?

এদিকে টিএমটি বারের পুজোর একটি মিউজিক অ্যালবামে দেখা যাবে রাজ-শুভশ্রী ও মিমিকে একসঙ্গে। থাকছেন বাংলার দাদা সৌরভ গাঙ্গুলি। এছাড়াও নাকি দেখা যাবে বনি সেনগুপ্ত ও নুসরত জাহানকে। আর সংগীত পরিচালনার দায়িত্বে জিৎ গাঙ্গুলি। তবে শোনা যাচ্ছে, মিমি যে অংশে থাকছেন সে পর্বের পরিচালনায় রয়েছেন বাবা যাদব।

ছবি: ফেসবুকের সৌজন্যে

আরও পড়ুন: রাজের জীবনে ফের মিমির আগমন

প্রসঙ্গত, বাগদানের পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ার হটকেক রাজ-শুভশ্রী। কখনও বিয়ের ছবি তো কখনও হানিমুন ফ্যানদের মজিয়ে রেখেছেন এই সেলেব জুটি। তবে বিয়ের পর কোমর বেঁধে কাজে নেমে পড়েছেন কর্তা। এবার ছোটদের নিয়ে বড় বিষয় পর্দায় তুলে ধরতে চলেছেন পরিচালক।

Advertisement